অকৃত্তিমতায় কৃত্রিম ভালোবাসা ( পর্ব ১)


বাবা একপ্রকার হুট করেই আমার বিয়েটা দিয়ে দিলেন।  মায়ার সাথে হোয়াটসঅ্যাপের ভিডিও কলে কথা বলছিলাম। বাবা দেখে ফেলেছিলেন।

''মেয়েটা কে রে?'' 

''বাবা, ও 'মায়া' ''।

''তোর বান্ধবী? তোর সাথে কি একই ক্লাসে পড়েছিলো?''

'' না বাবা।''

''তাহলে?''

 ভয়ে দুরুদুরু বুকে বললাম.... ''বাবা, আমি মায়াকে ভালোবাসি''

''বিয়ে করবি? নাকি ফাজলামির ভালোবাসা?''(একটু রেগে) 

'' বাবা, আমি মায়াকে ছাড়া বাঁচবো না। আমি ওকে সত্যি বিয়ে করতে চাই'' ( একেবারে বাবার জুতোর মধ্যে মুখ ঢুকিয়ে দিলাম)

" ওঠ,, ওঠ দেখি। এত ন্যাকামি করতে হবে না। সামনের সপ্তাহে মায়ার বাসায় আমি বিয়ের প্রস্তাব নিয়ে যাবো। তুই ও আমার সাথে যাবি। তোর মাকে যাবার দরকার নেই। মায়া কে বলবি আমার জন্য ঠিকঠাক ভাবে রান্না করে রাখতে।''

এভাবেই আমাদের দুই থেকে এক হয়ে যাওয়া। স্বপ্নের মতো লাগে আজো। আমার বাবা খুব রাগী মানুষ। মা কে বহুবার মারধর করতে দেখেছি৷ কিন্তু আমাদের দুভাই বোনের গায়ে কোনদিন হাত তোলেননি। বাবা ভালোবাসতেন ওনার ফুপাতো বোনকে। নাম ছিলো রিনা। মায়ের মুখে অনেকবার সেই কাহিনী শুনেছি। বাবা বিয়ের আগে নাকি আমার মায়ের কাছে গুনে গুনে ২৮টা চিঠি দিয়েছিলেন শুধু বিয়েতে অমত দেওয়ার জন্যে। কিন্তু কারোই তাদের বাবার সামনে গিয়ে 'না' বলার সাহসটা ছিলোনা। বাবা হয়তো মা' কে ভালোবাসেননা। কিন্তু আমাদের তো বাসেন। এটাই বা কম কি! বাবার সেই ভালোবাসার মানুষটি মারা যান আত্নহত্যা করে। সেই থেকে বাবা কেমন যেন হয়ে যান। মায়ের সাথে না পারতে কথা বলেন। যেন সব দোষ মায়ের।

' বৌমা এক কাপ চা দিয়ে যাও তো'

মায়াকে আজ বেশি হাসি খুশি লাগছে। বাবা বাসা তে একটা মানুষকেই খুব বেশী আল্লাদ দেন সে হচ্ছে আমার বউ। 

মায়ার নামটাই শুধু মায়া না। মায়ার চারপাশ টাও ভীষন এক মায়া জালে ভরা।

বিয়ের রাতে প্রথম যেদিন মায়াকে আমি স্পর্শ করতে যাই সেদিন মায়া ছিল অনুভূতিশূন্য। মায়াকে জড়িয়ে ধরে ঠোঁটে আলতো করে চুমু দিতেই মায়ার সমস্ত শরীর ঠান্ডা হয়ে নিশ্বাস বন্ধ হয়ে গেল। একদম যেন মৃত লাশের মত। কোন ভাবেই মায়া নিশ্বাস নিচ্ছিল না। আমি ভয়ে চিৎকার করতে থাকি। "মায়া,,,,  মায়া,,,,,,, কি হয়েছে তোমার? চোখ খোলো,,,মায়া,,,,?? ''

পাথরের মত ওর শরীরটা মাটিতে পড়ে গেল। আমি চিৎকার করে কাঁদতে লাগলাম।

,,,,,,,,,( চলবে)

    Tags :

No Comment yet. Be the first :)

Related Posts