অস্ত্র বানিজ্য

বর্তমান বিশ্বে সবচেয়ে ধ্বংসাত্মক ব্যবসা যেমন মারণাস্ত্র, তেমনি এ ব্যবসা সবচেয়ে লাভজনক। বিশ্বে প্রতি বছর প্রায় ছয় হাজার কোটি ডলার মূল্যের সমরাস্ত্র কেনা হয়। যা পুরো বিশ্বের জিডিপির ২.৭ শতাংশ। যেসকল দেশ প্রতিনিয়ত শান্তি প্রতিষ্ঠার কথা বলে থাকে সেসব দেশই অস্ত্র ব্যবসায় শীর্ষ স্হান দখল করে আছে। তারা এক দিক থেকে শান্তির কথা বলে অন্য দিক থেকে অস্ত্র বিক্রির জন্য বিশ্বকে অস্হিতিশীল করে তোলে। অস্ত্র বিক্রির দিক থেকে সবচেয়ে এগিয়ে  যুক্তরাষ্ট্র। প্রতি বছর অস্ত্র আমদানির   ৩৩ শতাংশ ক্রয় করা হয় যুক্তরাষ্ট্র থেকে। অস্ত্র রপ্তানিতে দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছে রাশিয়া। রাশিয়া প্রতি বছর বিশ্বের মোট অস্ত্র  রপ্তানির ২৩ শতাংশ সরবারহ করে থাকে। এছাড়া চীন, ব্রিটেন এবং ফ্রান্স অস্ত্র বিক্রি করে থাকে। ২০১৩-১৭ মেয়াদে ভারত ছিল অস্ত্র আমদানির শীর্ষ স্হানে। এ মেয়াদে আমদানি হওয়া মোট অস্ত্রের ১২ শতাংশ ক্রয় করছে ভারত এবং ভারতের আমদানি প্রায় ২৪ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়েছে। এ সময় ভারতকে অস্ত্র  সরবারহকারী দেশগুলোর তালিকার শীর্ষে রয়েছে রাশিয়া। ভারত তাদের মোট আমদানির ৬২ শতাংশ কিনেছে রাশিয়ার কাছ থেকে।  তালিকার দ্বিতীয় অবস্হানে আছে যুক্তরাষ্ট্র। অস্ত্র আমদানিকারক দেশগুলোর তালিকার দ্বিতীয় অবস্থানে আছে সৌদি আরব। ইরানের সাথে সম্পর্ক খারাপ হওয়ার কারনে সৌদি আরব তাদের অস্ত্র আমদানি বৃদ্ধি করেছে। সৌদিকে অস্ত্র সরবারহকারী তালিকার শীর্ষে আছে যুক্তরাষ্ট্র। ভারা হচ্ছে আগামী বছরগুলো অস্ত্র আমদানিতে সৌদি আরব ভারতকে ছাড়িয়ে যাবে। অস্ত্র আমদানিতে বাংলাদেশ রয়েছে ১৮তম অবস্থানে। স্টকহোম ইন্টারন্যাশনাল পিস রিসার্চ ইন্সটিটিউটের এক গবেষণা প্রতিবেদনে এসব তথ্য তুলে ধরা হয়।

বাংলাদেশ প্রসঙ্গে প্রতিবেদনে বলা হয়,  ২০১২-১৬ সাল পর্যন্ত চীন থেকে বাংলাদেশ সবচেয়ে বেশি অস্ত্র আমদানি করেছে।

১৯৯২ সালে সোভিয়েত ইউনিয়নের পতনের পরে অস্ত্র ব্যবসা কমে গেলেও বিগত বছরগুলোতে তা বৃদ্ধি পেয়েছে। এর প্রধান কারন হলো অস্ত্র উৎপাদনকারী দেশগুলোর অধিক মুনাফা অর্জনের লোভ এবং বিশ্বজুড়ে সন্ত্রাসবাদ বৃদ্ধি পাওয়া। প্রতি বছর যে পরিমাণ অস্ত্র বিক্রি হচ্ছে তা দিয়ে একটি দেশের দারিদ্র্য হ্রাস করা সম্ভব।  আর বিগত কয়েক দশকে যে অপ্রয়োজনীয় ভাবে অস্ত্র বিক্রি করা হয়েছে তা দিয়ে পুরো বিশ্বকে উন্নয়ন করা সম্ভব ছিল।                          

                                         

 

                                       

    Tags :

Related Posts