ইসলামে স্বাধীনতা ও দেশপ্রেম

স্বাধীনতা মহান নেয়ামত। মানুষ আশরাফুল মাখলুকাতে সৃষ্টির সেরা জীব হিসেবে রবের দেয়া প্রদত্ত অনেক নেয়ামতে আমরা ডুবে আছি। স্বাধীনতা মানুষের জন্মগত অধিকার। এর প্রমাণ পাওয়া যায় মানবতার মুক্তির দিশারী রাসুলে পাক (সা:)-এর পবিত্র মুখনিসৃত বাণীতে। তিনি ইরশাদ করেন, প্রত্যেক মানব সন্তান ফিতরাতের ওপর জন্মগ্রহণ করে (মিশকাত)। এই ফিতরাত বা প্রকৃতির মধ্যেই স্বাধীনতার মর্মবাণী নিহিত রয়েছে।
স্বাধীনতা একটি ব্যাপক প্রত্যয় ,যার প্রকৃতি অবর্ণনীয়। স্বাধীনতাই মানুষের অস্তিত্বে লালিত সুপ্ত প্রতিভা ও শক্তিকে ক্রমাগত উন্নতি অগ্রগতিরও সমৃদ্ধির পথে বিকশিত করতে সহায়তা করে। প্রত্যেক মানুষই চায় সে স্বাধীনভাবে বেঁচে থাকতে , স্বাধীনভাবে নিজ মত প্রকাশ করতে। কিন্তু সাম্রাজ্যবাদী শক্তির খড়গহস্ত প্রসারের মাধ্যমে এ স্বাধীনতা প্রক্রিয়া যখন ব্যাহত হওয়ার উপক্রম হয়, তখন স্বাধীনতা অর্জনের জন্য অথবা টিকিয়ে বা ধরে রাখতে যুগে যুগে দেশে দেশে বিভিন্ন জাতি স্বাধীনতা রক্ষার সংগ্রামেঝাপিয়ে পড়তে বাধ্য হয়েছে। পরাধীনতার শিকল থেকে মুক্ত হয়ে স্বতন্ত্র আবাসন ভূমি নির্মাণের প্রয়াস পেয়েছে। জীবন বাজি রেখে স্বদেশের জন্য মানুষের জন্য স্বাধীনতা সংগ্রামে রত থাকে তাদের এ নৈতিক অধিকারকে পবিত্র ধর্ম ইসলাম সমর্থন করে থাকে। দেশপ্রেম ঈমানের অঙ্গ এ পবিত্র মর্ম বাণী অনুধাবন করে স্বদেশপ্রীতির প্রেরণায় কত মানুষ যে যুগে যুগে কত স্বার্থ ত্যাগ করেছে, তার হিসেব জানা অনেক মুশকিল। সত্যিকারের দেশপ্রেমিক দেশ ও জাতির কল্যানে নিজ জীবন বিলিয়ে দিতে কখনো পরোয়া করে না।

প্রকৃত অর্থে দেশ ও জাতির সেবায় বা মানবতার সেবায় আত্মোৎসর্গ করতে পারলে সত্যিকার দেশপ্রেমিক নিজেকে ধন্য মনে করে থাকেন। দেশের স্বাধীনতা যেখানে আজ বিপন্ন, মানবতা আজ সেখানে পর্যুদস্ত, সেখানে দেশ ও দেশবাসীর মান-সম্ভ্রমরক্ষার জন্য মুক্তভাবে বাস করার জন্য যুদ্ধ করা সবার জন্য অনেক গুরুত্বপূর্ণ ও প্রয়োজন। আমার প্রিয় মাতৃভূমি বাংলাদেশ এক সাগর রক্ত ও দীর্ঘ নয় মাস যোদ্ধের বিনিময়ে ১৯৭১ সালে জন্ম নিয়েছে স্বাধীন সার্বভৌম আমাদের বাংলাদেশ। স্বাধীন দেশ হিসেবে বিশ্বের মানচিত্রে স্থান লাভ করে সুজলা-সুফলা,শষ্য-শ্যামলায়ঘেরা রুপসী বাংলাদেশ নাম। বিশ্বের মানচিত্রে আমাদের আত্মপরিচয় লাভ করে স্বাধীন জাতি হিসেবে।দেশপ্রেমের উদারতা ইতিহাসে পর্যালোচনা করলে যানা যায়, মুসলামনরা রাসুলে পাক (সা:)-এর দিকনির্দেশনায় পূণ্য লাভের আশায় পরিখা খননের কাজে ভ্যাপকভাবে অংশ নেন। যাতে কুরাইশ বাহিনী পরিখা পার হয়ে মদিনায় আসতে না পারে । কিছুদিন অবরুদ্ধ থাকার পর ব্যর্থ মনে মক্কায় ফিরে যেতে বাধ্য হয় মক্কার কুরাইশ বাহিনী। আর এটা ছিল তখনকার সময়ে স্বাধীনতা সুরক্ষায় বিশ্বনবী রাসুলে পাক (সা:)-এর অন্যতম ও বিস্ময়কর পদক্ষেপ।
তাছাড়া রাসুলে পাক (সা:) পবিত্র মদিনা মোনাওয়ারার স্বাধীনতা কে অক্ষুন্ন রাখার মানসে ওহুদের ময়দানে তাঁর পবিত্র দানদান মোবারক বিসর্জন দিয়ে স্বাধীনতা রক্ষার উজ্জ্বল দৃষ্টান্ত আমাদের জন্য আর কি হতে পারে ? অবশেষে অনেক ঘাতপ্রতিঘাত ও আক্রমণ মোকাবেলা করে অষ্টম হিজরীতে মক্কা বিজয়ের মাধ্যমে রাসুলে পাক (সা:) জালিম , সন্ত্রাসী ও পৌত্তলিকতার পাঞ্জা থেকে মক্কাকে মুক্ত করলেন। অত:পর সামান্য সময়ের ব্যবধানে স্বাধীন ইসলামী রাষ্ট্রের পরিধিকে বিস্তৃত করে সমস্ত আরব ভূ-খন্ড কে ভরে দিয়েছিলেন অবারিত শান্তি ও নিরাপত্তায়, অভূতপূর্ব শৃংখলায়, অপূর্ব সুষম বন্টনে, অবর্ণনীয় ভ্রাতৃত্ববোধে এবং স্বপ্নাতীত কল্যাণে।
রাসুূল (সা:)- এর সুমহান আর্দশকে অনুসরণ করে বীর বাঙলা মায়ের দামাল ছেলেরা বুকের তাজা রক্ত আর জীবন ত্যাগের বিনিময়ে শত শত বছরের পরাধীনতা আর গোলামির শিকল ভেঙে ১৯৭১ সালে ছিনিয়ে এনেছেন স্বাধীনতার পরিপূর্ণ স্বাদ ও লাল-সবুজের স্বাধীন একটি পতাকা। কিন্তু এ লাল সবুজের পতাকায় যে মর্যাদা বয়ে নিয়ে এসেছে , তাতে আমরা কি পেয়েছি সত্যিকারের স্বাধীনতা ? এক সাগর রক্ত, মা বোনের ইজ্জত, এতো প্রাণ ও ত্যাগ স্বীকার করে স্বাধীনতা অর্জনের উদ্দেশ্য বা কী ছিল ? তখন প্রত্যেকেরই প্রত্যাশা ছিল, পরাধীতার নাগপাশ থেকে মুক্ত হয়ে রাজনৈতিক ও নৈতিক ব্যবস্থাপনায় সার্থক অংশগ্রহণের মাধ্যমে সবাই সুন্দর ভবিষ্যৎ গড়ার সুযোগ লাভ করবে। দারিদ্র, নিরক্ষরতা এবং অজ্ঞতার অন্ধকার থেকে মুক্ত হয়ে এমন একটি সুখী, সমৃদ্ধশালী, শিক্ষিত ও দুর্নীতিমুক্ত দেশ গড়ে উঠবে। যেখানে ভাষা, ধর্ম, বর্ণ, নির্বিশেষে সবাই জাতীয় অর্জনের সুফল ভোগ করবে। অথচ আজ স্বাধীনতার ৪৭ টি বছরে দেশবাসীর যে স্বপ্ন আর প্রত্যাশার রূপায়ণ সত্যি প্রশ্নবিদ্ধ । কিন্তু সেটা কেন ? আমাদের কিসের অভাব ? শুধু ঘাটতি একটাই তা হল দেশপ্রেম। আজ আমাদের জাতীয় দুর্যোগই প্রমাণ করে দেশপ্রেম বিলুপ্তির পথে। অথচ মানবতার ধর্ম ইসলামে দেশকে ভালোবাসার প্রতি অনেক বেশি গুরুত্বারোপ করা হয়েছে । সুস্পষ্ট ভাষায় বলা হয়েছে দেশপ্রেম ঈমানের অঙ্গ।
ইসলামের কথাই হলো দেশের স্বাধীনতা সুরক্ষিত করতে স্বদেশপ্রেম অতিবজরূরী। বিশ্বনবী রাসুলে পাক (সা:) -এর জীবনার্দশ ও স্বভাব চরিত্রে দেশপ্রেমের জ্বলন্ত দৃষ্টান্ত পাওয়া যায়। তিনি নিজের মাতৃভূমি মক্কা নগরীকে অধীক বেশি ভালোবাসতেন। তাই স্বজাতি কর্তৃক নির্যাতিত,নিপীড়িত ও বিতাড়িত হয়ে জন্মভমি মক্কা থেকে মদিনায় হিজরতকালে বার বার মক্কার দিকে ফিরে তাকিয়ে ভারাক্রান্ত কণ্ঠে আফসোস করে বলেছিলেন, হে আমার মাতৃভূমি স্বদেশ! আমি তোমায় ছেড়ে যেতাম না। দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে দেশের জন্য , দেশের মানুষের জন্য কিছু করতে পারা অনেক গৌরবের বিষয়। রাসুলে পাক (সা:) এ শিক্ষাই আমাদের দিয়েছেন। অষ্টম হিজরি মোতাবিক ৬৩০ খ্রিস্টাব্দে রাসুলে পাক (সা:) যখন বিজয়ীবেশে প্রিয় জন্মভূমি মক্কাঢ প্রবেশ করলেন, তখন তাঁর স্বগোত্রীয় লোকেরা পবিত্র হেরেম শরিফে অপরাধী হিসেবে আসামীর কাঠগড়ায় দাঁরানো। কিন্তু রাসুলে পাক (সা:)এমনি মুহূর্তে স্বীয় দেশবাসীকে সাধারণ ক্ষমা ঘোষণা করেন, যা বিশ্বের ইতিহাসে তিনি অতুলনীয় দেশপ্রেম, উদারতা ও মহানুভবতা দৃষ্টান্ত স্থাপন করেন।

    Tags :

No Comment yet. Be the first :)

Related Posts