খাওয়ার আদব ও সুন্নত




আমরা সকলেই নিয়মিত খাবার খাই। কিন্তু এই খাবার খাওয়ার কিছু নিয়ম কানুন আছে,যেটা আমরা জেনে, না জেনে ভুল করি। যার  ফলে খাবার খাওয়ার সুন্নত গুলো আদায় করা হয় না। খাবার খাওয়ার সঠিক নিয়ম আমরা জেনে নিই।

১. জুতা খুলে খাবার খাওয়া। কেননা তার মধ্যে বেশী আরাম রয়েছে। এমন নয় যে, জুতা পরে খাওয়া যাবেনা এবং গুনাহও নয়।

২. উভয় হাত কব্জী পর্যন্ত ধৌত করে খাওয়া।

৩. কুলি করা সুন্নত, যদি প্রয়োজন হয়।

৪. বিনয়ী অবস্থায় সামনের দিকে ঝুঁকে বসে খাওয়া।

৫. জমিনে বসে খাওয়া উত্তম। চেয়ার টেবিলে বসে খাওয়া উত্তম নয়।

৬. খাবার সামনে আসলে দোয়া পড়তে হয়।

৭. খাওয়ার শুরুতে দোয়া আওয়াজের সাথে পড়া।

যাতে অন্যান্য লোকও শুনে পড়তে পারে। যদি শুরুতে পড়তে ভুলে যায়, তবে যখন মনে পড়বে, তখন দোয়া পড়া।

৮. কোনো বস্তুর সাথে হেলান দিয়ে বা ভর করে না খাওয়া। তবে যদি অসুস্থ হয়, তাহলে খেতে পারবে।

৯. ডান হাত দিয়ে খাওয়া। প্রয়োজন হলে বাম হাত দিয়েও খেতে পারবে।

১০. শারীরিক উপকার ও আল্লাহর হুকুম পালনের নিয়্যতে খাওয়া।

১১. তিন আংগুলি দ্বারা খাওয়া সুন্নত। প্রয়োজনে তিনের অধিক আঙুল ব্যবহার করা যেতে পারে।

১২. কতেক আলেম লবন দ্বারা শুরু করা এবং লবনের মাধ্যমে শেষ করা সুন্নত বলেছেন। 

১৩. খাবার প্লেট অথবা পাত্রের একপাশ থেকে খাওয়া। মাঝখানে হাত না দেয়া। কেননা মাঝখানে বরকত অবতীর্ণ হয়।

১৪. খেজুর এবং এ জাতীয় খাবার যেমন, বিষ্কুট, মিষ্টি, ইত্যাদি এক সাথে দুটি করে না খাওয়া। বরং একটি করে খাওয়া।

১৫. এক লোকমা শেষ হওয়ার পূর্বে আরেক লোকমা না উঠানো।

১৬. অতিরিক্ত গরম খাবার না খাওয়া।

১৭. গরম খাবার ও গরম পানিতে ফুঁক দিয়ে ঠান্ডা না করা।

১৮. যদি লোকমা পড়ে যায় তাহলে উঠাইয়া খাওয়া সুন্নত।

১৯. খাবারের মধ্যে দোষ না ধরা। যদি রান্নার মধ্যে দোষ ধরে তবে অসুবিধা নাই, খেয়াল রাখতে হবে কারো মনে যেন কষ্ট না পায়।

২০. খাবার সময় এমন কাজ না করা, যার দ্বারা অন্যের কষ্ট হয়।

২১. খাবার সময় এমন কাজে লিপ্ত হবে না, যার দ্বারা কষ্ট হয়। এবং জুরুরী জিনিষের জন্য কষ্ট হয়।

২২. অল্প ক্ষুধা বাকি থাকতে খাবার ছেড়ে দেওয়া। এতে করে হজম শক্তি বাড়ে।

২৩. আঙ্গুল এবং পাত্র পরিষ্কার করে খাওয়া। কেননা এর দ্বারা আল্লাহর নেয়ামতের প্রতি শুকরিয়া প্রকাশ পায়।

২৪. শেষ হওয়ার পূর্বে দোয়া পড়া।

২৫. দাওয়াতে বিছানায় খাওয়া সুন্নত।

২৬. দাওয়াতে  উঠানোর পূর্বে নিজে না উঠবেনা।

২৭. দাওয়াত থেকে ওঠার সময় দোয়া পড়া।

২৮. খাবার শেষ হলে উভয় হাত কব্জি পর্যন্ত ধোয়া।

২৯. খাবার পর কুলি করা সুন্নত।

৩০. দাঁত খিলাল করা।

৩১. খাবার শেষে হাত ধোয়ার পর  মুখ মোছা।

৩২. খাবার শেষ করার পর কিছু তেলোয়াত ও জিকির করা।

৩৩. খাবার শেষ করার সাথে সাথে শুইবেন না। এতে অন্তর শক্ত হয়ে যায়।

৩৪. দাওয়াত বা অন্যের ঘরে খাইলে দোয়া পড়া।

৩৫. একই মজলিসে কয়েকজন খেতে বসলে, যার খাওয়া শেষ, সে আগে না উঠা। এতে করে অপর জনের খেতে সমস্যা হয়।


আমরা খাবার খাওয়ার সঠিক নিয়ম আনুসারণ করবো এবং খাবারের সুন্নত গুলো আদায় করবো। এতে করে আমাদের খাবার হালাল হবে এবং খাবারে তৃপ্তি পাব। ইসলামের নিয়ম মেনে চলি এবং ইসলাম নিয়ে জীবন গড়ী।

Related Posts