খেজুরের গুড়ের চা বানানোর পদ্ধতি।



শীতকাল মানেই বাংলাদেশের মানুষের জন্য মজার একটি কাল। কার এই বাংলাদেশের প্রায় সব স্থানে ছুটি থাকে। বিশেষ করে স্কুল কলেজ। আর এ সময় প্রায় সব মানুষই তাদের গ্রামের বাড়িতে বেড়াতে  যায়। আর এ সময় গ্রামে যেমন পিঠার উৎসব চলে তেমনই শহরের মানুষ খেজুরের রস খোঁজে। শীতকালে অন্যতম মজার খাবারের মধ্যে একটি হল খেজুরের রস। আবার এই খেজুরের রস দিয়ে তৈরি হয় খেজুরের গুড়। নতুন ধানের চাল ও খেজুরের গুড় দিয়ে তৈরি পায়েস ও পিঠা পুলির স্বাদ যেন ভোলাই যায় না। তেমনি গ্রামের মানুষের আরও একটি পছন্দের খাবার খেজুরের গুড়ের চা। খেজুরের  গুড়ের চা ছাড়া গ্রামের কৃষক থেকে শুরু করে ছোট বড় সকল মানুষের দিন যেন শুরুই হয় না। আর গ্রমের মানুষ শীতে অতিথি আপ্যায়ন করে খেজুরের গুড়ের চা দিয়ে। আর এই খেজুরের গুড়ের চা কিভাবে তৈরি করতে হয় আমরা সেটি জানব। 


খেজুরের গুড়ের চা ৩ ভাবে তৈরি করা যায়। তার নিয়ম গুলো হলঃ-

 (১) গরুর দুধ

 (২) পাউডার দুধ

 (৩) কন্ডেনস্কমিল্ক


আসুন এবার নিয়ম গুলি যেনে নিই।


গরুর দুধ দিয়ে খেজুরের গুড়ের চা বানানোর নিয়ম। 


উপকরনঃ- গরুর দুধ, চা পাতি, খেজুরের গুড়। 


প্রণালিঃ- প্রথমে হাড়িতে হাফ কেজি দুধ নিই। তারপর স্বাদ অনুযায়ী খেজুরের গুড় দিই। তারপর সেটি চুলাই বসাই আর চামচ দিয়ে নাড়তে থাকি। তারপর খেজুরের গুড়টি গুলে যাওয়ার পর দুধ ফুটে ওঠা পর্যন্ত অপেক্ষা করি।  তার পর ফুটে উঠলে ৬চা চামচ চাপাতি দিই। কিছুক্ষণ ফোটার পর ছাঁকনি দ্বারা ছেকে নিই এবং চা পরিবেশন করি। 


গুড়া দুধ দিয়ে খেজুরের গুড়ের চা বানানোর নিয়ম। 


উপকরনঃ- গুড়াদুধ, চা পাতি, খেজুরের গুড়, পানি।


প্রণালিঃ-  আমি ৪ জন মানুষের জন্য চা বানাবো তাই আমাকে পরিমান ঠিক করে নিতে হবে। প্রথমে চার কাপ পানি নিই। তারপর পানি আর খেজুরের গুড় এক সাথে মিশিয়ে নিই। তারপর খেজুরের গুড় মেশানো পানি চুলাই  বসাই। পানি হালকা ফুটে উঠলে গুড়া দুধ মিশাই। তারপর ফুটে উঠলে ৬ চা চামচ চাপাতি দিই। আর কিছুক্ষণ ফুটে ওঠার পর  ছাঁকনি দ্বারা ছেকে নিই। এবং চা পরিবেশন করি। 


কন্ডেনস্কমিল্ক দিয়ে  খেজুরের গুড়ের চা বানানোর নিয়ম। 


উপকরনঃ- কন্ডেনস্কমিল্ক,  খেজুরের গুড়, চাপাতি, পানি।


প্রণালিঃ- আমি চা বানাবো তাই আমাকে পরিমান ঠিক করে নিতে হবে। যেমন ৪ জন মানুষের জন্য চা বানাবো। প্রথমে ৪ কাপ পানি নিই। তারপর পানি আর খেজুরের  গুড় এক সাথে মিশিয়ে নিই। তারপর খেজুরের গুড় মেশানো পানি চুলাই বসাই। পানি হালকা ফুটে উঠলে কন্ডেনস্কমিল্ক মিশাই। তারপর ফুটে উঠলে ৬চা চামচ চাপাতি দিই। আরও কিছুক্ষণ ফুটে ওঠার পর ছাঁকনি দ্বারা ছেকে নিই। এবং চা পরিবেশন করি।

    Tags :

No Comment yet. Be the first :)

Related Posts