ত্বকের যত্নে ফেসিয়াল A To Z | কোমল ও সুন্দর ত্বক পান ঘরে বসেই! (পর্ব-২)

গত পর্বে আমরা জেনেছি খুব সহজেই বাড়িতে বসে কিভাবে ফেসিয়াল করা যায়। এবং সঙ্গে ছিল কয়েকটি ঘরোয়া পদ্ধতিতে ক্লিনজার তৈরির উপায়। যা ফেস ক্লিনজিং এ ব্যাবহার করতে পারেন। এই পর্বে থাকছে আরো কয়েকটি অত্যন্ত কার্যকরী ফেসপ্যাক এবং ঘরোয়া স্ক্রাব যা আপনার বাড়িতে ফেসিয়াল করার সময় ব্যবহার করতে পারবেন। 

চলুন জেনে নেই ফেস ম্যাসাজ এর জন্য ঘরোয়া পদ্ধতিতে ফেসপ্যাক তৈরির উপায়:

১.দই এর ফেসপ্যাক 

দই থেকে পানি আলাদা করে নিন। শুধু ক্রিম অংশটি থাকবে। ক্রিম দই একটি পাত্রে নিয়ে তার সাথে ২ ফোঁটা অলিভ অয়েল, ২ ফোঁটা আলমন্ড অয়েল এবং ২ চা চামচ মধু ভালো করে মিশিয়ে নিন। 

★এই ফেসপ্যাক টি রুক্ষ ত্বকের জন্য অত্যন্ত ভালো। 

২.বেদনার ফেসপ্যাক 

২ টে.চামচ বেদানার দানা এবং ৬ থেকে ৮ টে.চামচ ওটমিল ভালোকরে পাটায় বেটে নিতে হবে। এবার মিশ্রণটি একটি পাত্রে নিয়ে ওই পাত্রে ২ টে.চামচ মধু ও ৩ টে.চামচ বাটারমিল্ক ভালো করে মিশিয়ে নিন।  

★এই ফেসপ্যাক টি ত্বকের নমনীয়তা রক্ষা করে এবং অকাল বার্দ্ধক্য জনিত লক্ষণগুলি থেকে ত্বককে রক্ষা করে। 

৩. কলা ও দই এর ফেসপ্যাক

একটি মাঝারি মাপের পাকা কলাকে ভালোকরে চটকে মেখে নিন। এবার ১/২ কাপ টক দই ও ২ বড় চামচ মধু ভালো করে কলার সাথে মিশিয়ে নিন। 

★কলা আমাদের ত্বকের জন্য অত্যন্ত ভালো। এটি আমাদে ত্বক কে নরম ও ভেতর থেকে নমনীয় করে তোলে।এটি সব রকম( রুক্ষ ও তৈলাক্ত) ত্বকের জন্য ভালো।

৪.বেসন, দুধ ও হলুদের ফেসপ্যাক

৩-৪ চামচ বেসন, অর্ধেকটি পাতিলেবুর রস,১/২ চামচ হলুদ বাটা (কাঁচা হলুদ ) ও ৪-৫ টে.চামচ কাঁচা তরল দুধ সবকিছু ভালো করে মিশিয়ে ফেসপ্যাক তৈরী করে নিন।

★এই প্যাকটি ত্বক গভীর থেকে পরিষ্কার করে এবং মুখের অতিরিক্ত তেল ও মৃত কোষ গুলি পরিষ্কার করে। এই ফেসপ্যাক টি বিশেষ করে তৈলাক্ত ত্বকের জন্য অত্যন্ত উপকারী। 

৫.টক দই ও কমলার ফেসপ্যাক

১ চামচ কমলার রস এবং ১ টে.চামচ টকদই ভালো করে মিশিয়ে নিন।

★সব ধরনের ত্বকের জন্য ভালো কিন্তু তৈলাক্ত ত্বকের জন্য একটু বেশি ভালো হবে। নিয়মিত ব্যবহারে ত্বক হবে উজ্জ্বল আর পিগমেনটেশন দূর হবে। 


স্ক্রাবিং আমাদের ত্বকের জন্য অতীব প্রয়োজন। স্ক্রাব করলে মুখের মরা চামড়া পরিষ্কার হয়, লোমকূপ থেকে ময়লা দূর হয়, এতে করে ত্বক আগের তুলনায় অনেক বেশি কোমল হয়। 

চলুন জেনে নেয়া যাক ঘরোয়া পদ্ধতিতে ফেসিয়াল স্ক্রাব তৈরির উপায়:

১.চালের গুঁড়ো ও দুধের স্ক্রাব

১ টে.চামচ চালের গুঁড়ো ,১ টে.চামচ তরল দুধ একসাথে ভালো করে মিশিয়ে পেস্টের তৈরি করে নিন। প্যাকটি মুখে ও গলায় লাগিয়ে ৩ থেকে ৪ মিনিট মাসাজ করুন। এরপর মিশ্রণটি ১৫ মিনিট মুখে রেখে, ভালো করে জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। 

★এটি সব রকম( রুক্ষ ও তৈলাক্ত) ত্বকের জন্য ভালো। ত্বক বেশি তৈলাক্ত হলে সাথে পরিমাণ মত লেবু মিশিয়ে নিন।

২.পেঁপের ও চিনির স্ক্রাব: 

কয়েক টুকরো পাকা পেঁপের সঙ্গে কিছুটা চিনি মিশিয়ে ভালো করে চটকে একটা প্যাক বানিয়ে নিন। তারপর এই প্যাকটি মুখে ও গলায় লাগিয়ে ৩ থেকে ৪ মিনিট মাসাজ করুন। এরপর মিশ্রণটি ১৫ মিনিট মুখে রেখে, ভালো করে জল দিয়ে মুখ ধুয়ে ফেলুন। 

★এই প্যাক ত্বককে ময়শ্চারাইজ় করতে সাহায্য করে। এছাড়া ত্বককে করে তোলে নরম তুলতুলে। শুষ্ক, স্বাভাবিক ও স্পর্শকাতর ত্বকের জন্য এই প্যাক খুবই উপকারী

৩.চন্দন গুঁড়োর স্ক্রাব: 

চন্দন গুঁড়ো, কেশর ও গোলাপ জল একসঙ্গে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এই প্যাক মুখে লাগিয়ে সার্কুলার মোশনে মাসাজ করুন। তারপর মিশ্রয়ণটি ১০মিনিট রেখে, ঠান্ডা পানি দিয়ে মুখ ভালো করে ধুয়ে নিন। 

★এই প্যাক মুখের দাগ ছোপ, সান ট্যান দূর করে ত্বককে করে তোলে ঝকঝকে।

৪.আমন্ড ও দুধের স্ক্রাব: 

৪-৫টি আমন্ড বাদাম সারারাত পানিতে ভিজিয়ে রেখে তা ভালো করে পেস্ট করে নিন। আমন্ডের এই পেস্টটি দুধের সাথে মিশিয়ে মিশ্রণ তৈরি করে  নিন। তারপর প্যাকটি মুখে ও গলায় ভালো করে ম্যাসাজ করুন। কিছুক্ষণ প্যাকটি মুখে রেখে পানি দিয়ে ভালো করে ধুয়ে ফেলুন।   

★এই প্যাক ত্বকের পুষ্টি যোগায় ও ত্বককে ময়শ্চারাইজ় করে। শুষ্ক ত্বকের জন্য আমন্ডের এই প্যাক খুবই উপকারী।

১.কফি ও অলিভ অয়েলের স্ক্রাব

১ চা.চামচ কফি গুঁড়ো ও ১ চা.চামচ অলিভ অয়েল ভালো করে মিশিয়ে প্যাক তৈরি করে নিন। এই প্যাকটি মুখে ও গলায় ভালো করে ৩-৪ মিনিট ম্যাসাজ করে নিন। তারপর হালকা কুসুম গরম পানি দিয়ে ধুয়ে ফেলুন। 

★এই প্যাকটি নিয়মিত ব্যবহারে ত্বকের উজ্জ্বলতা অনেক বৃদ্ধি পাবে। সেই সাথে কমবে ত্বকের অন্যান্য সমস্যা। তৈলাক্ত ত্বকে ব্যবহার করবেন না।

স্ক্রাবিং টিপস-----

★স্ক্রাবিং শুরুর পূর্বে মুখ ভালোভাবে পরিষ্কার করে নিতে হবে।
★সার্কেল মোশনে স্ক্রাব করতে হবে।
★চোখের চারপাশের অংশে স্ক্রাবিং-এর সময় বিশেষ সতর্কতা অবলম্বন করুন। এ অংশে স্ক্রাবিং করতে হবে খুব আলতো ভাবে। কেননা এ অংশের চামড়া অন্যান্য অংশের তুলনায় অনেক পাতলা।
★স্ক্রাবিং শেষ হবার পর মুখ সাধারণ তাপমাত্রার পানিতে ধুয়ে নিবেন।তারপর ১৫/২০ সেকেন্ড আইস কিউব এপ্লাই করুন। এই স্টেপটি কোনমতেই স্কিপ করতে যাবেন না।
★স্ক্রাবিং এর পর সব সময় ময়েশ্চারাইজার ব্যবহার করতে হবে।
★ব্রনের ক্ষেত্রে দানাদার স্ক্রাব ব্যবহার করবেন না।
★অতিরিক্ত শুষ্ক এবং সংবেদনশীল ত্বকে স্ক্রাব না করাই ভালো।

Related Posts