প্রযুক্তিতে প্রতিরক্ষা। পর্ব-২

সাবমেরিনের ইতিবৃত্তঃ প্রথম ভাগ


সাবমেরিন মূলত এক ধরনের জলযান এটা জানেন না এমন কেউ আছেন বলে মনে হয় না। সাবমেরিন সর্ম্পকিত বিদেশী চলচিত্র  দেখেননি এমন লোকও হাতে গোনা। তবে সাবমেরিন কিভাবে কাজ করে এ সম্পর্কে অনেকেই জানেন না। আমি সেই সর্ম্পকে সহজ ভাষায় কিছু ধারনা দিতে চাই। 


সাবমেরিন মূলত এমন একটি জলযান যা পানিতে নিমজ্জিত অবস্থায় চলতে পারে। সাধারনত সাগর তলের বিষয়াবলী নিয়ে গবেষণা, সাবমেরিন কেবলের ত্রুটি নিরসন, উদ্ধার কাজ, পত্নতাত্বিক গবেষণা সহ বিভিন্ন কাজে ব্যবহার করা হয়। আর যুদ্ধ ক্ষেত্রে সাগরের গভীরে নিমজ্জিত অবস্থায় আত্নগোপন করে শত্রুর উপর হামলার জন্য ব্যবহার করা হয়। 


সচরাচর সাবমেরিন দেখতে সিলিন্ডারের মত হয়ে থাকে। তবে প্রয়োগ ক্ষেত্র অনুসারে আকৃতিতে ভিন্নতা দেখা যায়।


সাবমেরিনের সবচেয়ে জটিল কিন্তু আকর্ষনীয় অংশ হচ্ছে সাবমেরিনের সাবমার্স বা ডুব দিয়ে চলা। সাবমেরিন কিভাবে ডুব দেয় বা কিভাবে পানির নিচে যায় আবার কিভাবেই বা উপরে উঠে আসে এটা কি কেউ চিন্তা করেছেন? আপাতদৃষ্টিতে জটিল মনে হলেও এটা কিন্তু খুব সহজ একটা বিষয় যদি সেটা কি আপনি জানেন?


আপনি যখন বালতি থেকে মগ কেটে পানি নিয়ে গোসল করেন তখন অবশ্যই আপনার চোখে পড়েছে মগ যখন সম্পূ্র্ণ পানি পূর্ণ অবস্থায় পানি ভর্তি বালতিতে ছেড়ে দেওয়া হয় তখন কিন্তু সেটা একেবারে ডুবে যায় না। বরং ডুবে ডুবে ভাসতে থাকে। মগ অর্ধেক পূর্ণ থাকলে মগ অর্ধেক ডুবন্ত অবস্থায় ভাসতে থাকে। এখানে মগ বালতিতে যতটুকু পানি সরিয়ে যায়গা নিচ্ছে ততটুকু পানির ওজন আর পানি সহ মগের ওজনের সম্পর্কের উপরি নির্ভর করে মগ কতখানি ডুবে থাকবে। মগের ভিতর পানি বেশি থাকলে বাতলিতে মগ বেশি ডুবে থাকবে আর মগে পানি কম থাকলে উল্টোটা।


সাবমেরিন বা ডুবোজাহাজ এই নীতিকেই অনুসরণ করে। সাবমেরিনের সামনের দিকে ও পেছনের দিকে ব্লাস্ট টেঙ্ক রয়েছে। সাবমেরিন যখন পানির নিচে যাবে তখন এই টেঙ্ক গুলো ভর্তি করে দেওয়া হয়। ব্লাস্ট টেঙ্কে পানি বাড়ানোর সাথেই সাবমেরিন ডুবতে শুরু করে। সম্পূর্ণ ভর্তি হয়ে গেলে সাবমেরিন সম্পূর্ণ পানির নিচে। এছাড়াও সাবমেরিনের মাঝামাঝিতে থাকে ডেপ্টথ কন্ট্রোল টেঙ্ক। এই তিনটি টেঙ্ক এ পানি নিয়ন্ত্রিত মাত্রায় ঢুকিয়ে বা বের করে ডুবোজাহাজ পানির নিচে তার প্রয়োজনীয় গভীরতায় যায় আবার উপরে উঠে আসে। মানুষের কি চমৎকার বুদ্ধি তাইনা? কত সহজ বিষয়কে কাজে লাগিয়ে জটিল কাজ সমাধান করছে। 


সাবমেরিন কিন্তু আজকের এ পর্যায়ে একদিনে আসেনি। আপনি দাঁড় টানা নৌকা অবশ্যই দেখেছেন। সাবমেরিনের শুরুও কিন্তু দাঁড় টেনে।  অবাক হলেন তো। আরো অবাক করতে সামনের পর্বে সাবমেরিন সংক্রান্ত অারো কিছু তথ্য নিয়ে হাজির হব। ততক্ষণ অপেক্ষায় থাকুন।

    Tags :

No Comment yet. Be the first :)

Related Posts