মোবাইল রিপেয়ারিং ব্যবসা

মোবাইল ফোন একটি জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম। সারা বিশ্বে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মোবাইল ব্যবহারকারীর সংখ্যা। বর্তমানে ইন্টারনেট ব্যবহারের প্রবণতার ফলে এই সংখ্যা ব্যাপক ভাবে বাড়ছে। মোবাইল ফোনের মাধ্যমে মানুষ পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে সহজেই যোগাযোগ করতে পারেন। মোবাইল ফোন সেট মেরামত ব্যবসাটি একটি আধুনিক ব্যবসার ধারণা।


সম্ভাব্য পুঁজি: মোবাইল ফোন সেট মেরামত ব্যবসাটি শুরু করতে আনুমানিক ২০০০০০ টাকা থেকে ৫০০০০০টাকা পর্যন্ত পুঁজি বিনিয়োগ করা প্রয়োজন হতে পারে।


ব্যবসার অবস্থান: আপনার নিকটস্থ বাজার বা কোন শপিং মলে ছোট্ট একটি দোকানে এই ব্যবসাটি শুরু করা যায়। অবশ্যই কোন জনাকীর্ণ স্থান নির্বাচন করতে হবে।


কিভাবে শুরু করবেন: যে কোন ধরনের মোবাইল ফোন সেটের যে কোন সমস্যা সমাধান করে এই ব্যবসা পরিচালনা করা যায়। শুরু করার আগে দোকানটিকে ভালো ভাবে ডেকোরেশন করতে হবে। এক্ষেত্রে কেবিনেট ও ডেস্কের প্রয়োজন হবে। দোকানে পর্যাপ্ত আলো বাতাসের ব্যবস্থা থাকতে হবে। মোবাইল শো-রুমের আশপাশে দোকান দিতে পারলে প্রচুর কাজ পাওয়ার সম্ভাবনা থাকে।


সুবিধা: এই ব্যবসায় মোবাইল মেরামতের পাশাপাশি মোবাইলের বিভিন্ন ক্ষুদ্র যন্ত্রাংশ যেমন- ব্যাটারি, চার্জার, ক্যাচিং, এয়ার ফোন, হেডফোন, মেমোরি কাড, মোবাইল রিচার্জ ইত্যাদি পাইকারী কিনে খুচরা বিক্রয় করা যায়। তাছাড়া বিভিন্ন স্মার্ট ফোনের সফটওয়্যার সংক্রান্ত সমস্যা গুলির সমাদানও করা হয়ে থাকে।


কেন শুরু করবেন: এটি একটি সহজ ব্যবসা, তাই দিন দিন অনেক উদ্যোক্তাই এই ব্যবসাটিকে পেশা হিসেবে গ্রহণ করছে। তাছাড়া এটি একটি অত্যন্ত লাভজনক ব্যবসা। তাছাড়া মোবাইল ফোনের সহজলভ্যতা ও দাম হাতের নাগালের কাছে হওয়ায এই ব্যবসায় গ্রাহকের সংখ্যা বেশি।


বর্তমান বাজার: মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন না এমন মানুষের সংখ্যা খুবই কম। তাই গ্রাহকের সংখ্যাও বেশি। কিন্তু সেই তুলনায় অভিজ্ঞ মোবাইল মেকানিকের সংখ্যা কম। তাই এই ব্যবসার বিশাল একটি বাজার রয়েছে।


টার্গেট গ্রাহক: মোবাইল ফোন ব্যবহার করেন এমন মানুষই এই ব্যবসার গ্রাহক।


যোগ্যতা: মোবাইল ফোন মেরামত সংক্রান্ত প্রশিক্ষণ নিয়ে এই ব্যবসা শুরু করতে হয়। মোবাইল ফোনের যাবতীয় খুঁটিনাটি বিষয় সম্পর্কে জানতে।


সম্ভাব্য আয়: এই ব্যবসাটি শুরু করে মাসিক ২০০০০ টাকা থেকে ৩০০০০ টাকা পর্যন্ত আয় করা সম্ভব।


    Tags :

No Comment yet. Be the first :)

Related Posts